কপি, পেস্ট, এডিট, ক্রেডিট, অতঃপর…

অন্যের লেখা কপি-পেস্ট করার অসুবিধা অনেক, সুফলও কিন্তু কম নয় । যেমন- আজ আমি ইন্টারনেটে বাংলায় লেখছি, এর পেছনেও কপি পেস্টের যথেষ্ট অবদান আছে। আমার স্পষ্ট মনে আছে যখন প্রথম অভ্র দিয়ে বাংলা লেখি তখন ২ লাইন লেখতেও খুব কষ্ট হতো। তবে উৎসাহেরও কমতি ছিলনা। নিজের নামটা এরকম অক্ষরে দেখার আনন্দ অনেক। আর নিজের নামের সাথে যখন ভাল কোন লেখা জুড়ে দেওয়া যায় তখন সেটা মনকে খুব সহজেই আনন্দিত করে।

আমি যখন ইন্টারনেটে প্রথম বাংলা লেখা শিখলাম, ধুমায়ে কপি করতাম। ব্লগের পোস্ট, পত্রিকার খবর কিচ্ছু বাদ যেতনা। একটু ইন্টারেস্টিং মনে হলেই কপি করে নিজের ব্লগে রেখে দিতাম। আর অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকতাম এটা আমার ব্লগ! এত সুন্দর! হোক না তা কপি পেস্ট, নিজের ব্লগে দেখতে তো সুন্দর লাগছে! যাহোক, এই কপি পেস্টের জন্য ২-৩ জনের কাছে দৌড়ানিও খেয়েছি। এরপর ধীরে ধীরে বুঝলাম অন্যের লেখা কপি করে নিজের নামে চালিয়ে দেওয়া উচিত না। অন্যের ব্লগ থেকে কপি পেস্ট করা যে পোস্টগুলো ছিল সেগুলো ড্রাফট করে ফেললাম। ততদিনে মোটামুটি বাংলা লেখা শিখে ফেলেছি কিন্তু পুরো পোস্ট লেখতে অনেক কষ্ট হতো।

যাহোক, অন্যের ব্লগ থেকে কপি পেস্ট করা বাদ দিলাম। আমার ব্লগও পোস্টের অভাবে ভুগতে থাকলো। শেষমেস পত্রিকা থেকে কপি পেস্ট করা আরম্ভ করলাম । যেমন একটা পোস্ট সম্ভবত এরকমও ছিল, “এই গরমে অতিষ্ট অমুক চিড়িয়াখানার একটা বানরের ছবি।” এরপর বিখ্যাত কবিদের কবিতা কপি পেস্ট করা আরম্ভ করলাম। এরপরও হঠাৎ একদিন দৌড়ানি খেলাম। দৌড়ানিটা ছিল মাহমুদ ফয়সাল ভাইয়ের কাছ থেকে। একটা কবিতার পর উনার ছবি ছিল সেখানে শিরোনামসহ আরও কিছু ব্যক্তিগত লেখা ছিল। বেকুব আমি সেটা না বুঝে সবগুলো একসাথে কপি করে ফেলেছিলাম। এখন অবশ্য ভাইয়া আমার সবচেয়ে একটিভ সহব্লগারদের একজন। আমাদের ব্লগীয় সম্পর্কও অনেক ভাল।

এভাবে একটার পর একটা হোঁচট খেতে খেতে অনেক কিছু শিখলাম। নিজেরও একটু উন্নতি হলো। নজর পড়লো টেকি পোস্টগুলোর দিকে। অন্যের লেখা টেকি পোস্টগুলোকে একটু ঘুরিয়ে নিজের মতো করে লিখে পোস্ট করতে লাগলাম। এটা বেশ ভাল একটা টেকনিক। কারণ ট্রিপস ট্রিকসের কোন কপিরাইট থাকেনা, সেটাকে নিজের মতো করে লিখলেই পোস্টটা নিজের হয়ে গেল।

পরবর্তীতে আরও উন্নতি হলো। ইংরেজী সাইট থেকে অনুবাদ করে পোস্টানো আরম্ভ করলাম। ততদিনে সম্ভবত পুরোপুরি ম্যাচিউর্ড হয়ে গেছি। নিজের আইডিয়াকেই মোটামুটি গুছিয়ে লিখতে পারি। অনেকগুলো সীমাবদ্ধতা মোটামুটি কাটিয়ে উঠেছি। যাদের পোস্টগুলো কপি পেস্ট করেছিলাম তাদের শুধু সরিই বলে এসেছি এতদিন, ধন্যবাদ দেওয়া হয়নি। আজ এই পোস্টের মাধ্যমে তাদের আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আপনাদের অগোচরেই আপনাদের পোস্ট কপি করে আজ নিজের থেকে লেখতে পারছি। অনেক অনেক সশ্রদ্ধ কৃতজ্ঞতা আপনাদের প্রতি।

আরেকটা ঘটনার কথা মনে পড়ে গেল। ব্লগিং শুরুর একদম প্রথম দিকের ঘটনা। আমার ব্লগের (ওয়ার্ডপ্রেস ) সব ছাইপাশ লেখাও যে কেউ পড়ে সেটা সম্পর্কে আমার আইডিয়াই ছিলনা। “সুফিয়ান ডট কম” নিকের এক ব্লগার সামহোয়্যারইনে তার বিড়াল বিসিএস পরীক্ষা দিতে চায় এরকম শিরোনামে বিড়ালের বই পড়ার ছবি নিয়ে একটা পোস্ট দেন। পোস্টটা আমার ভাল লাগে। হুট করে নিজের ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগে কপি করে ফেলি। এরপর এক আজব ঘটনা ঘটে। কোন এক ব্লগার যেন সুফিয়ান ভাইরে চোর বলে আমার ব্লগের পোস্টের লিংক দিয়ে বসেন। সুফিয়ান ভাই নিজেকে নির্দোষ দাবী করে আরও কিছু ছবি দেন এবং তিনিই যে পোস্টের আসল লেখক প্রমান করেন। পাবলিকের সব রাগ এসে পড়ে আমার উপর। ভয়ে পোস্ট ড্রাফট করে ফেলি আর সেখানে মন্তব্য করার সাহসও পাইনি। পরে অবশ্য সুফিয়ান ভাইয়ের কাছে মেইল করে ক্ষমা চেয়েছি আমি। তিনি আমাকে ক্ষমাও করেছেন। তার কাছে অনেক অনেক কৃতজ্ঞ আমি।

এই ঘটনা থেকে একটা জিনিস শিখেছি কারও পোস্ট খুব ভাল লাগলে যদি কপি করি তাহলে তার অনুমতি নেওয়া উচিত, এবং অবশ্যই অবশ্যই ক্রেডিটের ঘরে তার নাম উল্লেখ করা উচিত। নাহলে হয়তো অনেক সুফিয়ান ভাইকে চোরের অপবাদ শুনতে হবে, পোস্টের মূল লেখক হিসবে অবশ্যই সেটা তার প্রাপ্য নয়।

যাহোক, যে কারণে এই পোস্ট লেখা সেই প্রসঙ্গে আসি। আজ হঠাৎ এক ফোরামে দেখলাম ২০০৯ সালে লেখা আমার এক পোস্ট একজন কপি করেছেন। শুধু তাই নয়, পোস্টে যে ছবি ছিল সেটায় তার নাম এবং তার সাইটের নাম লিখে দিয়েছেন। যেনতেন সাইট না, রীতিমতো টাকা দিয়ে ডোমেইন কেনা সাইট। খুব ভাল বুদ্ধি। নিজে অন্যের থেকে কপি করবে, কিন্তু এরপর আর কাউরে কপি করতে দেবে না। সাথে নিজের সাইটের একটু প্রচারণাও হয়ে গেল। হা… হা… হা… । উনাকে ছোট করা আমার উদ্দেশ্য না। সে কারণেই উনার নাম উল্লেখ করছি না। তবে উনার এবং আমার মতো আরও যারা এরকম কপি করতেন বা করেন তাদের প্রতি অনুরোধ প্লিজ কোন কিছু কপি করলে মূল লেখকের নাম উল্লেখ করুন। নাহলে হিরো হতে যেয়ে জিরো হয়ে যাবেন।

ব্লগে আমার একেবারেই অল্প কয়েকটা লেখা আছে। এগুলোও মাঝে মাঝে কপি হয়। সত্যি কথা বলি, লেখা কপি হতে দেখলে আমার বেশ ভালোই লাগে। মনে হয়, যাক আমার লেখাটা কারো ভাল লেগেছে তাহলে। ব্লগে আমার লেখার উপর কোন কপিরাইট বসাতে চাইনা আমি। আমার পোস্ট হোক ওপেনসোর্স, ঠিক অভ্রের মতো। তবে এই লেখার লেখক হবার অপরাধে (!) চোর সাজতে চাইনা আমি। আমার লেখা (ব্যক্তিগত ডায়েরী বাদে) ইচ্ছামতো কপি পেস্ট করুন, আমার কোন আপত্তি নাই। অনুরোধ একটাই কোন লেখা কপি করলে প্লিজ মূল লেখকের নামটা উল্লেখ করুন। মূল লেখককে তার প্রাপ্য সম্মান দিলে আপনার বা আমার সম্মান কমবেনা, বরং বাড়বে।

লেখাটা অনেক বড় করে ফেললাম বোধয়, মাফ করে দিয়েন। আসলে অনেকদিন পর লিখছি তো, কথা ধরে রাখতে পারিনি। হড়হড় করে সব কথা বলে ফেলেছি।

ভাল থাকবেন। আল্লাহ হাফেজ।

21 responses to “কপি, পেস্ট, এডিট, ক্রেডিট, অতঃপর…

  1. হে হে হে, এইসব ঝামেলার জন্য আমার কোন লেখার কপিরাইট নেই। যে যেখানে ইচ্ছে কপি করে। আমি কিছুই বলি না। বলার ও কোন দরকার নেই।

    তবে আমি কিন্তু অন্যের কোন লেখ কপি-পেস্ট করি না।

  2. উফফফ… আমার একবার এই সমস্যা হয়েছিল। “ঢাকা ফোরাম” বা এই জাতীয় এক ফোরামে আমার ২/৩ টা লিনাক্সিয় লেখা কেউ একজন কপি পেস্ট করে দেয়। দেয়ার পর লেখায় মূল লেখার লিংক ও দেয়নি। তারপর আরেক ফোরামে (সম্ভবত প্রজন্ম ফোরামে) এক লোক “ঢাকা ফোরামের” লিংক পোস্ট করে বলে যে আমি নাকি অন্যের লেখা চুরি করে নিজের বলে চালিয়ে দেই! নিজের লেখার জন্য নিজেই চোর! কী অবস্থা! এজন্য আমার ব্লগে লাইসেন্স নামে আলাদা একটা অংশ আছে, যাতে লেখা আছে যে বিনা অনুমতিতে কপি পেস্ট না করতে। নিজের লেখার কারণে নিজেকেই চোর তকমা শুনতে কার ভাল লাগে! মাঝেমাঝে কয়োকজন অবশ্য অনুমতি চেয়েই লেখা কপি করে।

  3. রনি ভাই মনে আছে কপি করে এটা লেখা দিয়েছিলাম……….??আপনার কাছ ধরা খাইলাম……..
    হা.হা………
    তখন এতকিছু জানতাম না…………….

  4. আপনার সরল স্বীকারোক্তি ভাল লাগল।
    সামহোয়ার ইন থেকেই আপনি আমার বুকমার্কে আছেন। সামহোয়ার যেমন আপনি একেবারেই ছেড়ে দিয়েছেন। আমিও আজকাল কালেভদ্রে লিখি। অভদ্র আচরন প্রতিরোধে মডারেটরদের নির্লিপ্ততাই এর কারন।
    ওয়ার্ডপ্রেস সমন্ধে আপনার কাছ থেকেই প্রথম জানি। সামু থেকে সরে এসে তখন সবে ব্লগস্পটে লেখা শুরু করেছি। ওয়ার্ডপ্রেসের সুবিধার কথা জানতে পেরে এখানেই ঘাটি গাড়লাম। ব্যস্ততার কারনে যদিও খুব কম সময় দেয়া হয়। এই সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও একটা ব্লগের ‘ড্রাফট’ দাড় করিয়েছি। সেখানে আপনাকে আমন্ত্রন জানালাম। সাজেশন ও প্রত্যাশা করলাম। মাঝে মধ্যে টিপস ও নেব ইনশাল্লাহ।
    আপাততঃ একটা প্রশ্ন- সব লেখা ড্রপডাউন বক্স এ কিভাবে দেয়া যায়?

    • ধন্যবাদ ভাই।
      ওয়ার্ডপ্রেস আমার ব্লগারের চেয়ে বেশি ভাল লাগে।
      আপনার ব্লগ ঘুরে আসলাম। ভালোই।😀
      কোন অসুবিধা নাই। আমি সাধ্যমতো চেষ্টা করবো।
      এখানে অনেকগুলো অপশনের জন্য অনেক কোড আছে। সেখান থেকে All posts in a drop-down এর অপশনটা ফলো করুন।

  5. রনি, ভাইয়া আমি ওই কথা ভুলেই গেসিলাম। এই পোস্টটা পড়তে এসে আবার মনে পড়ে গেলো!!
    আমি মিয়া দৌড়ানি দিসিলাম নাকি? মাইর খাবা! জাস্ট একটা ইমেইল দিসিলাম যে কেন আমাকে বলে নাও নাই। আর তখন আমিও নতুন ছিলাম ওয়ার্ডপ্রেসে। 🙂

    আর এখন তোমার এমন অবস্থা যে ওয়ার্ডপ্রেসও মনে করে তুমি মনে হয় বিভিন্ন জায়গায় লিঙ্ক দিয়ে ব্লগের হিট বাড়াও😀

    • আমি খুব ভয় পাইছিলাম তখন।😀
      না রে ভাই। ঐটা ব্রাদারসফটের একটা লিংকের জন্য হয়েছিল। ওয়ার্ডপ্রেসে নাকি ব্রাদারসফটের কোন লিঙ্ক দেওয়া উচিত না। একটা সফটওয়্যারের ডাউনলোড লিঙ্ক দিয়েছিলাম ব্রাদারসফট থেকে। ওয়ার্ডপ্রেসে অটোমেটিক স্ক্যানে সেটা ধরা পড়ায় নাকি আমার ব্লগ ডিলিট করা হয়েছিল। পরে মেইল করলে ওয়ার্ডপ্রেসেরই একজন এডমিন ব্রাদারসফটের লিংকটা মুছে দেওয়ার অনুরোধ করে ব্লগ ফিরিয়ে দেন। পরে অবশ্য আমি পোস্টটাই ড্রাফট করে ফেলেছি।😀

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s