নিজের বানানো অক্ষরে লেখা ডায়েরীর কিছু অংশ

ছোটবেলায় আমার ডায়েরী কাউকে পড়তে না দেওয়ার জন্য প্রতিটি অক্ষরকে নিজের মতো করে বানিয়ে নিয়েছিলাম। আগের পোস্টে এটা নিয়ে বিস্তারিত লিখেছি। এই পোস্টটা আগের পোস্টেরই একটা অংশ। মন্তব্যের ঘরে তুসিনের আগ্রহ দেখে সেই ডায়েরীর কিছু অংশ স্ক্যান করে তুলে দিলাম। এখন এই অক্ষরগুলো আমি নিজেই ভুলে গেছি। ২-১ টা শব্দ বুঝতে পারছি। বাকিগুলোর মর্ম উদ্ধার করা এখন আমার পক্ষে আর সম্ভব না। তারপরও স্মৃতি হিসেবে এই অংশবিশেষ তুলে রাখছি ব্লগে।

13 responses to “নিজের বানানো অক্ষরে লেখা ডায়েরীর কিছু অংশ

  1. আগে আমিও এভাবে কোডের মাধ্যমে বার্তা প্রেরণ করে বেশ মজা পেতাম, প্রথম প্রথম টা জলের মত সোজা ছিল যেমন (numeric ভ্যালু অফ ABCD..), তো একবার ক্লাস এ অমুক 1215225 ……(বান্ধবী) বলতেই দেখি ক্লাসের অনেকেই বুঝে গেছে! আস্তে আস্তে নিজের কোডে নিজেই এত জটিল করে ফেললাম যে নিজের decode করতেই ১০-১৫ মিনিট লেগে যেত। তবে এখন কোড পেলে decode করতে ভুলি না, কোড decode এ অমানুষিক মজা!

    • সংখ্যার ব্যাপারটা আগে থেকেই জানতাম। তাছাড়া সংখ্যা ডিকোড করা মোটামুটি সহজই বলা যায়। সেজন্যই আমাকে নতুন অক্ষর উদ্ভাবন করতে হয়েছিল। এমন উদ্ভাবন করা করেছি যে এখন নিজেই ভুলে গেছি।🙂

  2. রনি ভাই আপনাকে অনেক ধন্যবাদ…………..ডায়েরী অংশ তুলে দেত্তয়া জন্য। দেখার ইচ্ছা ছিল।
    বাসায় নেট এর লাইন না থাকায় অনেকদিন ব্লগ জগতের বাহিরে ছিলাম………
    আপনার ডায়েরী অংশটা ভাল করে দেখলাম। কিন্তু কিছুই বুঝলাম না্। দ্বিতীয় লাইনের দ্বিতীয় অক্ষরটা মনে হয় “অথাৎ” এটা বুঝতে পারছি। কি আমার আইডিয়া কি ঠিক আছে??

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s